৩ মাঘ  ১৪২৮  সোমবার ১৭ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

এক নিমেষে আনন্দ বদলে গেল দুঃখে, বোনের বিয়ের শোভাযাত্রায় নাচতে নাচতে মৃত্যু যুবকের

Published by: Kishore Ghosh |    Posted: December 7, 2021 6:36 pm|    Updated: December 7, 2021 6:36 pm

elder brother died when dancing in sisters wedding procession | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আনন্দের অনুষ্ঠান মুহূর্তে বদলে গেল শোকের আবহে! বোনের বিয়ের শোভাযাত্রায় নাচতে নাচতে মৃত্যু হল বড় ভাইয়ের। বেদনাবহ ঘটনাটি ঘটেছে রাজস্থানের (Rajasthan) রাজাসামান্দ জেলার কারাতাবাস গ্রামের গুর্জর পরিবারে। শোভাযাত্রায় যুবকের নাচতে নাচতে আকস্মিক মৃত্যুর ভিডিও ভাইরাল (Viral Video) হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায় (Social Media)।

পরপর বিয়ের অনুষ্ঠান ছিল গুর্জর পরিবারে। আজ ৭ ডিসেম্বর বিয়ে হওয়ার কথা ছিল পরিবারের ছোট ছেলে শম্ভু গুর্জরের। দিন চারেক পর ১১ ডিসেম্বর বিয়ে হওয়ার কথা ছিল শম্ভুর বোনেদের। ফলে গত কয়েকদিন ধরেই বাড়িতে লেগেছিল হইহুল্লোড়। আত্মীয়স্বজনের আসা-যাওয়া, খাওয়া-দাওয়া, হাসি-আড্ডা সঙ্গে বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল জোরকদমে। পরিকল্পনা মতোই হচ্ছিল সব কিছু। কিন্তু তার মধ্যেই ঘটে গেল বিচ্ছিরি দুর্ঘটনা। বিয়ের আগে বিয়ের জন্য করা একটি শোভাযাত্রায় (স্থানীয়রা যাকে বলেন বিন্দোলি) ঘটে গেল বিপত্তি।

[আরও পড়ুন: জুম কলে ৩ মিনিটে ৯০০ কর্মীর চাকরি খেলেন প্রবাসী ভারতীয় CEO, ভিডিও ভাইরাল]

জানা গিয়েছে, রবিবার রাত সাড়ে ১২টা নাগাদ বিয়ের শোভাযাত্রা বের হয় কারাতাবাস গ্রামের গুর্জর বাড়ি থেকে। শোভাযাত্রায় ছিলেন গুর্জর পরিবারের সদস্য ও প্রতিবেশীরা। নিয়ম মতো শোভাযাত্রাটি বাড়ির আশপাশের এলাকা ঘুরেই শেষ হওয়ার কথা ছিল। এই শোভাযাত্রায় সকলের সঙ্গে আনন্দে মেতেছিলেন বাড়ির বড় ছেলে অর্থাৎ শম্ভু গুর্জরের দাদা নারায়ণ লাল গুর্জরও। DJ-র তালে নাচতে নাচতে বাড়ি থেকে ৩০০ মিটার দূরে সবার অলক্ষ্যে পড়ে যান তিনি। যতক্ষণে ভিড় খেয়াল করে নারায়ণকে, ততক্ষণে সব শেষ!

[আরও পড়ুন: সাক্ষাৎ অন্নপূর্ণা! ভাইয়ের বিয়ের বেঁচে যাওয়া খাবার দুস্থদের বিলিয়ে মন কাড়লেন রানাঘাটের মহিলা]

পরে নারায়ণকে স্থানীয় আর কে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও চিকিৎসকরা জানান, আগেই যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তবে ঠিক কী কারণে মৃত্যু হয়েছে গুর্জর পরিবারের বড় ছেলের তা জানা যায়নি। নারায়ণের আকস্মিক মৃত্যুকে শোকস্তব্ধ স্ত্রী ও মা। মৃতের ৪ ও ৭ বছরের দুই সন্তান রয়েছে। গুজরাটের উজা এলাকায় একটি কারখানায় কাজ করতেন নারায়ণ। গুর্জর পরিবার আর্থিকভাবে অনেকটাই তাঁর উপরেই নির্ভরশীল ছিল, এখন তাঁদের কী হবে ভেবে পাচ্ছেন প্রতিবেশীরা।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে