৩১ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৬  শনিবার ১৫ জুন ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ

৩১ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৬  শনিবার ১৫ জুন ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জলের তলায় বসে পিরামিড আকৃতির রুবিক’স কিউব সলভ করে বিশ্বরেকর্ড গড়লেন মুম্বইয়ের চিন্ময় প্রভু। দমবন্ধ অবস্থায় মাত্র ১ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডে মোট নটি কিউবের রং মিলিয়ে গিনেস বুকে নাম তুললেন ২০ বছরের এই যুবক। ২০১৭ সালে লিমকা বুক অফ রেকর্ডস -এ নাম তোলার পর এবার গিনেস বুক অফ রেকর্ডস-এ নাম তুললেন তিনি।

ছোটবেলা থেকে রুবিক’স কিউবের সমাধান আর সাঁতার এই দুটোই প্রধান পছন্দের বিষয় ছিল চিন্ময়ের। তবে রং মেলান্তির খেলাই বেশি টানত! গত বছরের ৯ ডিসেম্বর সুইমিং পুলের জলের তলায় বসে পিরামিড আকৃতির কিউব মিলিয়ে ফেলেন তিনি। আর তার ভিত্তিতেই গত ১৫ মার্চ গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস কর্তৃপক্ষের তরফে বিশ্বরেকর্ডের সার্টিফিকেট দেওয়া হল।

[আরও পড়ুন-দ্বিগুণ দাম পেতে পাঁঠায় গায়েও কলপ! আজব কাণ্ড জলপাইগুড়িতে]

এপ্রসঙ্গে তিনি বলেন, “কিউবের সমাধান ও সাঁতার কাটা পছন্দ করি আমি। তাই ভাবলাম এই দুটোকে মিশিয়ে যদি নতুন কিছু একটা করা যায় তাহলে কেমন হয়! এরপরই গিনেস কর্তৃপক্ষের কাছে এই ধরনের বিশ্বরেকর্ডের স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য অনুরোধ করি। কারণ, আগে কোনওদিন এই ধরনের রেকর্ডের ক্ষেত্রে কোনও স্বীকৃতি দিত না তারা। সবুজ সংকেত পেতেই গত পাঁচ বছর ধরে চেষ্টা চালাচ্ছিলাম। তবে প্রথম প্রথম জলের তলায় মাত্র ৩০ থেকে ৩৫ সেকেন্ড দমবন্ধ করে থাকতে পারতাম। কিন্তু, এখন দেড় মিনিট পর্যন্ত থাকতে পারি।”

[আরও পড়ুন-পাঞ্জাবের এই গ্রামে রাস্তা ও নেমপ্লেটে থাকে শুধুমাত্র মহিলাদের নাম]

প্রথমে গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস-এর তরফে চারটি কিউব সলভ করতে দেওয়া হয়েছিল চিন্ময়কে। কিন্তু, শেষপর্যন্ত তিনি ৯টি কিউব সলভ করেন। চিন্ময়ের কথায়, “আসলে আমি ভেবেছিলাম চার বা পাঁচটা কিউব সলভ করলে যে কোনওদিন যে কেউ আমার রেকর্ড ভেঙে দেব। তাই ন’টা কিউব সলভ করেছি আমি। এর জন্য পাঁচ মাস ধরে জলের তলায় ট্রেনিং নিয়েছিলাম।”

তবে শুধু নিজে বিশ্বরেকর্ড করেই থামতে চান না চিন্ময়। চান আরও মানুষ অংশ নিন এই খেলায়। তৈরি হোক নতুন নতুন রেকর্ড। এর জন্য মাত্র ২০ বছর বয়সেই কিউব সলভের প্রশিক্ষণ দিতে শুরু করেছেন তিনি। খুলেছেন কোচিং সেন্টার। তাঁর সবচেয়ে কমবয়সী ছাত্রের বয়স হল মাত্র চার বছর। চিন্ময়ের এই সাফল্যে গর্বিত হয়েছেন তাঁর পরিবারের অন্য সদস্যরাও। তাঁর বাবা প্রদীপ প্রভু বলেন, “আমরা কোনওদিনই ভাবতে পারিনি যে ও এতদূর যাবে। ও যখন কিউব সলভ করতে শুরু করেছিল তখন ওর পছন্দের বিষয় বলেই আমরা উৎসাহ দিয়েছিলাম। কিন্তু, কোনওদিন ভাবেনি এতবড় ঘটনা ঘটিয়ে ফেলবে।”

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং