BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৩ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

করোনার জের, ফুটসল ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপ দিয়ে শুরু হবে ভারতীয় ফুটবল মরশুম

Published by: Sulaya Singha |    Posted: April 27, 2020 3:24 pm|    Updated: April 27, 2020 4:56 pm

An Images

দুলাল দে: কবে উঠবে লকডাউন? লকডাউন উঠলেও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে কবে?

ভারতীয় ফুটবলের সঙ্গে জড়িত কেউ জানেন না। ফলে কবে থেকে ফের মাঠে বল গড়াবে, তা নিয়েও কেউ নিশ্চিত হতে পারছেন না। কিন্তু পরিকল্পনা তো করে রাখতেই হবে। ফেডারেশন দপ্তর খোলা না থাকলেও, নিজেদের মধ্যে ভিডিও কনফারেন্সে প্রতিদিনই বিভিন্ন পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা চলছে। ঠিক হয়েছে, লকডাউন উঠে পরিস্থিতি যখন স্বাভাবিক হবে, তখন আইএসএল, আই লিগ ক্লাবগুলি নিয়ে হবে ফুটসল ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপ। আর এটাই হবে করোনা পরবর্তী ভারতীয় ফুটবলের প্রথম প্রতিযোগিতা।

এশিয়ার বেশিরভাগ দেশের ফুটসলের জাতীয় দলে থাকলেও, আমাদের কোনও জাতীয় দল নেই। ফলে এএফসির কোনও ফুটসল চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিতে পারে না ভারত। এএফসির তরফে বারবার অনুরোধ আসায় ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের কর্তারা এ নিয়ে প্রথম আলোচনায় বসেন ডিসেম্বরে। তখনই ঠিক হয়, এই মরশুমে জুন-জুলাইয়ে হবে ফুটসল ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপ। আলোচনায় ঠিক হয়, আইএসএলের ক্লাবদের পাশাপাশি আই লিগের প্রথম এবং দ্বিতীয় ডিভিশনের সব ক্লাবকেই চিঠি দিয়ে জানানো হবে এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার জন্য। এরপর যারা খেলতে আগ্রহী হবে, তাদের মধ্যে থেকে ১৫-১৬টি ক্লাবকে বেছে নিয়ে হবে ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপ।

[আরও পড়ুন: ‘বাঁচাতে পারে ভারতই’, করোনা পরিস্থিতিতে বেতন নিয়ে আশঙ্কায় অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক]

জুন-জুলাইয়ে ১৫ দিনের প্রতিযোগিতা করলে সেই সময় তো কোনও দলেই ফুটবলার থাকে না। এই দিকটা মাথায় রেখেই ফেডারেশন ঠিক করেছে, এই প্রতিযোগিতায় খেলার জন্য ফেডারেশনে ক্লাবদের কোনও নথিভুক্ত ফুটবলার না হলেও সমস্যা নেই। শুধুমাত্র এই ফুটসল চ্যাম্পিয়নশিপের জন্যই আলাদা করে ফুটবলার নথিভুক্ত করা হবে। অর্থাৎ ইস্টবেঙ্গল, কিংবা মোহনবাগান চাইলে এই ফুটসল প্রতিযোগিতার জন্য বিজয়ন-বাইচুংকে নথিভুক্ত করে খেলাতে পারবে। তাই জুন-জুলাইয়ে প্রতিযোগিতা হলেও কোনও ক্লাবেরই ফুটবলার পাওয়া নিয়ে কোনও সমস্যা হবে না। আর যেহেতু ফুটসল, তাই সে সময় বৃষ্টিতে ম্যাচ আয়োজন করা নিয়েও সমস্যা নেই।

ফেডারেশনের তরফে আমন্ত্রণ পেয়ে কলকাতার দুই প্রধান ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগান জানিয়েছে, ফুটসল খেলার প্রস্তাব নিয়ে ভেবে উত্তর দেবে। তবে কলকাতারই আরেক প্রধান জানিয়ে দিয়েছে, ফুটসল চ্যাম্পিয়নশিপে খেলতে আগ্রহী তারা। মহামেডানের সঙ্গেই খেলার জন্য আপাতত সম্মতি দিয়েছে, বেঙ্গালুরু এফসি, এফসি গোয়া, ওড়িশা এফসি, কেরালা ব্লাস্টার্স, ট্রাউ, এইউ রাজস্থান এফসি, এআরএ এফসি, এবং আইজল এফসি। যাবতীয় পরিকল্পনা যখন বাস্তব রূপ নিতে যাচ্ছে, ঠিক তখনই করোনা বিপত্তি। এই মরশুমের আই লিগটাই আর শেষ করা গেল না। শেষের ম্যাচগুলো বাতিল হয়ে গেল। সারা দেশে লকডাউন। ফলে জুন-জুলাইয়ে ফুটসল ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপ হওয়ারও আর কোনও সম্ভাবনা নেই। তাহলে উপায়?

গত বুধবার ভারতীয় ফুটবল কর্তাদের নিজেদের মধ্যে যে আলোচনা হয়, সেখানেই ফের ওঠে এই ফুটসল চ্যাম্পিয়নশিপ নিয়ে। কারণ, বুধবারের আলোচনায় ফুটবল কর্তারা মূলত আলোচনা করেন, সব কিছু স্বাভাবিক হওয়ার পর কী ভাবে ধীরে ধীরে ফের ফুটবল শুরু হবে? আর তখনই আই লিগের সিইও সুনন্দ ধর তোলেন ফুটসলের প্রসঙ্গ। যা সবারই পছন্দ হয়ে যায়। তখন ঠিক হয়, যেহেতু ফুটসল প্রতিযোগিতায় প্রচুর মানুষের সমাগম হবে না, তাই সব কিছু ঠিক হয়ে যাওয়ার পর নিয়মবিধি মেনে এই প্রতিযোগিতা দিয়েই শুরু হবে ভারতীয় ফুটবল। কারণ, কোনও বড় প্রতিযোগিতা দিয়ে শুরু করলে, দর্শক সমাগমের উপর কীভাবে সব কিছু নিয়ন্ত্রণ হবে কিছু জানা নেই। তার উপর দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ক্লাবকে জড়িয়ে নিলেও ফুটসল আয়োজন করতে খুব একটা খরচ হবে না। করোনা পরবর্তী পর্যায়ে খরচ কমানোর জন্য এই ফুটসল ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপ কলকাতা, দিল্লি, মুম্বইয়ে হওয়ার সুযোগ বেশ কম। এই প্রতিযোগিতা হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি শিলংয়ে। আর এ নিয়ে লারসেন মিংয়ের সঙ্গে ফেডারেশন কর্তাদের এক প্রস্থ আলোচনাও হয়ে গিয়েছে।

[আরও পড়ুন: কঠিন পরিস্থিতিতে কর্তব্যে অবিচল, কলকাতা পুলিশকে ধন্যবাদ সৌরভের]

কবে হবে এই প্রতিযোগিতা, স্বাভাবিকভাবেই তা এই মুহূর্তে ঠিক না হলেও, প্রতিযোগিতার নিয়মাবলি থেকে যাবতীয় কিছু পরিকল্পনা এখনই করে রাখা হচ্ছে। যেদিন সব কিছু স্বাভাবিক হবে, সেদিনই ঘোষণা হবে দেশজুড়ে এই ফুটসল ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপ। আর সেটাই হবে করোনা পববর্তী ভারতীয় ফুটবলের প্রথম প্রতিযোগিতা।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement