১৪ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৮ মে ২০২০ 

Advertisement

পাক-অধিকৃত কাশ্মীর থেকে ভারতে হামলার ছক, প্রকাশ্যে জেহাদি ভিডিও  

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: August 17, 2019 10:52 am|    Updated: August 17, 2019 10:52 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কাশ্মীরে নাকানিচোবানি খেয়ে এবার পাকিস্তানের জমি থেকে ভারতের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করল সন্ত্রাসবাদী সংগঠনগুলি৷ সম্প্রতি পাক-অধিকৃত কাশ্মীরের রাজধানী মুজফ্ফরবাদ থেকে একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে জঙ্গিরা৷ ভারতে নাশকতা চালাতে মুসলিম ‘ধর্মযোদ্ধা’দের আহ্বান জানানো হয়েছে৷

[আরও পড়ুন: সাম্প্রদায়িক উসকানি, সাহায্যের হাত সরিয়ে জাকির নায়েকের সভা বন্ধ করল মালয়েশিয়া]

গোয়েন্দা সূত্রে খবর, জঙ্গিনেতা সৈয়দ সালাউদ্দিনের নেতৃত্বে হিজবুল মুজাহিদিন এবং ইউনাইটেড জিহাদ কাউন্সিলের মতো সংগঠনগুলিকে ভারতে হামলা চালাতে পাক সরকার নতুন করে মদত দিচ্ছে বলে খবর। সংবিধানের ৩৭০ এবং ৩৫এ ধারা রদ করে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর এবার ভারতের বিরুদ্ধে নতুন করে হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে পাক জেহাদিরা। গত বৃহস্পতিবারই পাক-অধিকৃত কাশ্মীরের মুজফফরাবাদের প্রেস ক্লাবের সামনে মিছিল করে হিজবুল মুজাহিদিনের খালিদ সইফুল্লা এবং নইব আমিরের মতো সন্ত্রাসী নেতারা। সেখানে সরাসরি জিহাদের ডাক দেওয়া হয়। ভারতের বিরুদ্ধে হামলার হুঁশিয়ারি দেওয়া একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়।

সন্ত্রাসবাদীদের আর্থিক মদত দেওয়ার জন্য ইতিমধ্যেই ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্সের গ্রে তালিকায় রয়েছে পাকিস্তান। এবার যদি ওই দেশ নিজের অবস্থান না বদলায় তাহলে কালো তালিকাভুক্ত করা হতে পারে ইসলামাবাদকে৷ এদিকে, রাষ্ট্রসংঘে কাশ্মীর ইস্যুতে ফের মুখ পুড়েছে পাকিস্তানের৷ চিনের অনুরোধে কাশ্মীর ইস্যুতে শুক্রবার যে ‘ঘরোয়া বৈঠক’ ডেকেছিল রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ, সেখানে বড় জয় পেয়েছে ভারত৷ এই ইস্যুতে রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের সমর্থন আদায় করে নেয় নয়াদিল্লি৷ বেজিং ছাড়া ইসলামাবাদের পাশে দাঁড়াল না কেউই৷ এমনকী, ইন্দোনেশিয়া ও কুয়েতের সমর্থন জোগাড়েও অসমর্থ হয় ইমরান প্রশাসন৷ এমনকী, এই বৈঠকের আগেই চিনের বিরোধিতা করে ফ্রান্স। শুধু ফ্রান্সই নয়, চিন ছাড়া নিরাপত্তা পরিষদের অন্য চার স্থায়ী সদস্য প্রকাশ্যে নয়াদিল্লির অবস্থান সমর্থন করে। এটি ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বিষয় বলে তারা মত প্রকাশ করে। একই পথে হেঁটে আমেরিকাও জানায়, কাশ্মীরের উন্নয়ন নিয়ে ভারতের এই সিদ্ধান্ত পুরোপুরিই তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়।

[আরও পড়ুন: গ্রিনল্যান্ড কিনবেন ট্রাম্প! মার্কিন পত্রিকার রিপোর্টে শোরগোল আন্তর্জাতিক মহলে]

 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement