১১ বৈশাখ  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ২৫ এপ্রিল ২০১৯ 

Menu Logo নির্বাচন ‘১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও #IPL12 ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মহিলাদের মসজিদে প্রবেশ ও প্রার্থনা করতে দেওয়ার আবেদন নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলেন এক মুসলিম দম্পতি। মঙ্গলবার তাঁদের আবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিম কোর্টে শুনানি হবে।

[আরও পড়ুন- নেহেরু-ইন্দিরারা যখন সেনা তৈরি করেন, তখন মোদি প্যান্ট পরাও শেখেননি: কমল নাথ]

গত বছর কেরলের শবরীমালা মন্দিরে সববয়সী মহিলাদের প্রবেশ করতে দিতে হবে বলে নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্ট। পাশাপাশি মসজিদে প্রার্থনা করার ক্ষেত্রেও মহিলাদের উপর নিষেধাজ্ঞা চাপানোর বিরোধিতা করে। আর এতেই অনুপ্রাণিত হন মহারাষ্ট্রের বাসিন্দা ইয়াসমিজ জুবের আহমেদ পিরজাদে ও তাঁর স্বামী জুবের আহমেদ পিরজাদে। এরপরই মসজিদে ঢোকার অনুমতির জন্য দেশের সর্বোচ্চ আদালতের দ্বারস্থ হবেন বলেই সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা।

[আরও পড়ুন- চোখে আঘাত করে সাংবাদিকের ছেলেকে খুন, নৃশংস ঘটনায় বিহারে চাঞ্চল্য]

এবিষয়ে কোর্টে জমা দেওয়া আবেদনে তাঁরা দাবি করেছেন, “মহিলাদের মসজিদে ঢুকতে না দেওয়ার প্রথাটি বেআইনি ও অসাংবিধানিক। পাশাপাশি এই বিষয়টি ভারতীয় সংবিধানে উল্লেখিত ১৪, ১৫ ২১, ২৫ এবং ২৯ নম্বর ধারার বিরোধী।” একইসঙ্গে তাঁদের দাবি, ইসলাম ধর্মের প্রবর্তক হজরত মহম্মদ মহিলাদের মসজিদে প্রবেশে যেমন বিরোধিতা করেননি, তেমনি নিষেধ করা হয়নি পবিত্র কোরানেও। তাঁদের কথায়,” কোরানে কোথাও পুরুষ ও মহিলাদের মধ্যে বিভাজন করা হয়নি। সেখানে শুধুমাত্র বিশ্বাসের কথা বলা হয়েছে। কিন্তু, এখন ইসলাম এমন একটি ধর্মে পরিণত হয়েছে যেখানে নারীদের নির্যাতিত হতে হচ্ছে।”

[আরও পড়ুন- সাম্প্রদায়িক মন্তব্যের জের, ৭২ ঘণ্টার জন্য যোগীর প্রচারে নিষেধাজ্ঞা কমিশনের]

বর্তমানে জামাত-ই-ইসলামি ও মুজাহিদ গোষ্ঠীগুলির অধীনে থাকা মসজিদগুলোতে শর্তাসাপেক্ষে মহিলাদের প্রবেশ করার অনুমতি থাকলেও সুন্নি সম্প্রদায়ের মসজিদে নেই। এমনকী যেখানে আছে সেখানেও পুরুষদের সঙ্গে একই দরজা দিয়ে মসজিদে ঢুকতে বা বের হতে পারেন না মহিলারা।

[আরও পড়ুন- কাশ্মীরের অনন্তনাগে মেহবুবা মুফতির কনভয়ে পাথর হামলা]

গতবছর সেপ্টেম্বর মাসে কেরলের শবরীমালা মন্দিরে আয়াপ্পা স্বামীকে দর্শনের জন্য সববয়সী মহিলাদের প্রবেশ করতে দিতে হবে বলে নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্ট। বিভিন্ন নারী সংগঠনগুলি ও কেরল সরকারের পক্ষ থেকে এই রায়কে স্বাগত জানানো হলেও বিরোধিতায় নামেন আয়াপ্পা ভক্তরা। এর জেরে রাজ্যব্যাপী উত্তেজনারও সৃষ্টি হয়। যদিও পরে পিছপা হতে বাধ্য হন আয়াপ্পা ভক্তরা।

[আরও পড়ুন-সিবিআইয়ের কাছে রাজীব কুমারের হলফনামার জবাব তলব সুপ্রিম কোর্টের]

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য,২০১৬ সালের মে মাসে মহারাষ্ট্রের সমাজসেবী ত্রুপ্তি দেশাইয়ের নেতৃত্বে কড়া নিরাপত্তার মধ্যে মুম্বইয়ের হাজি আলি দরগায় প্রবেশ করেন একদল মহিলা। যদিও মসজিদের অভ্যন্তরে যেখানে মহিলাদের প্রবেশ নিষিদ্ধ সেখানে ঢুকতে দেওয়া হয়নি তাঁদের।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং