BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

নির্বাচনী প্রচার নিষিদ্ধ হলেও ভোটদান বাধ্যতামূলক গুজরাটের এই গ্রামে, নচেৎ জরিমানা

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: April 21, 2019 2:08 pm|    Updated: April 28, 2019 11:59 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাজনৈতিক দলগুলি যখন দেশব্যাপী প্রচারে ব্যস্ত। প্রতিটি মুহূর্তে ভোটারের প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন প্রার্থীরা। ঠিক তখনই পুরো উলটো ছবি চোখে পড়বে গুজরাটের রাজকোটের রাজসমাধিওয়ালা গ্রামে। কারণ রাজকোটের এই গ্রামে রাজনৈতিক দলের প্রার্থীদের প্রচার করার উপর রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। উলটোদিকে কেউ ভোট দিতে না গেলে তাকে জরিমানা করার নিদানও রয়েছে এখানে।

[আরও পড়ুন-‘বাবরি ধ্বংসের কোনও অনুশোচনা নেই’, আবারও বিস্ফোরক সাধ্বী প্রজ্ঞা]

গ্রামবাসীদের মতে, বিভিন্ন দলের প্রার্থীরা রাজনৈতিক প্রচার করতে এলে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে বিভাজন হবে। যা এই এলাকার পরিবেশের উপর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলবে। তাই গ্রাম উন্নয়ন কমিটির তরফে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে কোনও রাজনৈতিক দলের প্রার্থীকেই এখানে নির্বাচনী প্রচার করতে দেওয়া হবে না।

[আরও পড়ুন-‘ন্যায়’-এর হোর্ডিংয়ে নিয়মভঙ্গ, রাহুলকে নোটিস কমিশনের]

এপ্রসঙ্গে ওই গ্রামের মোড়ল অশোক ভাই ভাঘেরা বলেন, “এখানকার বাসিন্দারা মনে করেন যে নির্বাচনী প্রচারের ফলে গ্রামের পরিবেশ অশান্ত হয়ে উঠবে। তাই গ্রাম উন্নয়ন কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রচার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। রাজনৈতিক দলগুলি প্রচার করতে এলে গ্রামবাসীদের একদল এদের সঙ্গে যাবেন, তো বাকিরা ওদের সঙ্গে যাবেন। ফলে তাঁদের মধ্যে বিভাজন হবে। যা নির্বাচন শেষ হয়ে গেলেও মিটবে না। গ্রামবাসীদের এই মনোভাব বুঝতে পেরে রাজনৈতিক দলগুলোও আমাদের সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়েছে।”

[আরও পড়ুন-সাহসিকতাকে কুর্নিশ, বীরচক্র সম্মানে ভূষিত হতে পারেন অভিনন্দন]

নির্বাচনী প্রচার নিয়ে ছুঁতমার্গ থাকলেও ভোটদানের বিষয়ে কিন্তু একটু বেশিই সচেতন রাজসমাধিওয়ালার বাসিন্দারা। ১০০ শতাংশ ভোটদানের লক্ষ্যে তাই জরিমানার নিয়মও চালু করা হয়েছে গ্রাম উন্নয়ন কমিটির বৈঠকে। অশোক ভাই ভাঘেরার কথায়, “প্রতিটি নির্বাচনের সময় এই এলাকা থেকে যাতে ১০০শতাংশ ভোট পড়ে তার জন্য সবরকম চেষ্টা করি আমরা। এর জন্য কেউ ভোট না দিলে তাঁকে ৫১ টাকা জরিমানা দিতে হয়। তবে যাঁরা মারা গেছেন বা যে সমস্ত মেয়েরা বিয়ের পর অন্য জায়গায় চলে গেছেন তাঁদের নাম ভোটার তালিকায় থাকে। তাই ভোটদানের হার পুরো ১০০ শতাংশ সম্ভব না হলেও ৯৫ থেকে ৯৬ শতাংশ হয়।”

শুধু অবশ্য ভোট সম্পর্কে সচেতনতাই নয়। এখানে এলে ইন্টারনেট পরিষেবা, সিসিটিভি ক্যামেরা কিংবা পরিশ্রুত পানীয় জল-সহ আধুনিক সমস্ত সুযোগ-সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন আপনি। তবে যেখানে সেখানে প্লাস্টিকের ক্যারিব্যাগ ফেললে দিতে হবে জরিমানা। এক গ্রামবাসীর কথায়, এখানে বসবাসকারী সবাই বিনামূল্যে ইন্টারনেট পরিবেষা পান। এলাকার নিরাপত্তার জন্য বিভিন্ন জায়গায় সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। রয়েছে আধুনিক সুবিধা সম্বলিত একটি ক্রিকেট খেলার মাঠও। ফলে এই গ্রাম একেবারেই চলে আপন মতে৷ 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement