১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  শনিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২০ 

Advertisement

কে পেল ‘আচ্ছে দিন’? ভিভিআইপি বিমান প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মোদিকে কটাক্ষ রাহুলের

Published by: Biswadip Dey |    Posted: October 30, 2020 8:09 pm|    Updated: October 30, 2020 8:12 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বহু আলোচিত ‘আচ্ছে দিন’ কে পেল? সীমান্তে কনকনে শীতে চিনা আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ভারতীয় জওয়ানদের সংগ্রাম ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির (PM Modi) ভিভিআইপি বিমানের প্রসঙ্গ তুলে এভাবেই আজ বিকেলে কটাক্ষ করলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi)। এর আগেও তিনি প্রধানমন্ত্রীর ৮ হাজার ৪০০ কোটি টাকার বিমানের প্রসঙ্গ তুলে আক্রমণ করেছেন। শুক্রবার আবারও সেই প্রসঙ্গ তুললেন তিনি।

এদিন বিকেলে তাঁর টুইটে রাহুল লেখেন, ‘‘দেশের জওয়ানরা প্রবল শীতে সাধারণ তাঁবুতে থেকেও চিনের আক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করে যাচ্ছেন। এদিকে দেশের প্রধানমন্ত্রী ৮ হাজার ৪০০ কোটি টাকার বিমানে ঘুরে বেড়ান। চিনের নাম নিতেও তাঁর ভয়। কে পেল আচ্ছে দিন?’’ নিজের পোস্টের সঙ্গে তিনি একটি সংবাদপত্রের প্রতিবেদনও যুক্ত করে দেন। সেখানে লাদাখের এক প্রাক্তন বিজেপি সাংসদের বিবৃতি তুলে দাবি করা হয় লালফৌজ আবারও ঢুকে পড়েছে ভারতীয় ভূখণ্ডে। এবং প্রবল শীতে সাধারণ টেন্টে থেকেও তাদের মোকাবিলা করছেন ভারতীয় জওয়ানরা। যদিও পরে ‘প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরো’ দাবি করে এটা সম্পূর্ণ ভুয়ো খবর। ভারতীয় সীমান্ত  মোটেই পেরোয়নি চিনা ফৌজ।

[আরও পড়ুন: হাসপাতালের শৌচাগারে দলীয় পতাকার মতো রং! যোগী প্রশাসনের নিন্দায় মুখর সমাজবাদী পার্টি]

প্রসঙ্গত, কয়েক সপ্তাহ আগেই মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিমানের ধাঁচে তৈরি প্রধানমন্ত্রীর নতুন বিমান ভারতে এসেছে। তারপর থেকেই বেশ কয়েকবার সেই বিমানের প্রসঙ্গ তুলে কটাক্ষ করতে দেখা গিয়েছে রাহুলকে। তার মধ্যে সীমান্তে চিনের আগ্রাসনের প্রসঙ্গও রয়েছে। তিনি জানিয়েছিলেন, ‘‘একদিকে প্রধানমন্ত্রী মোদি দু’টি বিমান কিনছেন ৮ হাজার কোটি টাকা খরচ করে। অন্যদিকে চিন আমাদের সীমান্তরেখায়। আমাদের সেনা ঠান্ডাকে উপেক্ষা করে তাদের হাত থেকে সীমান্ত রক্ষা করতে ব্যস্ত।’’ শুক্রবার আবারও সেই প্রসঙ্গের পুনরাবৃত্তি করলেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি।  ২০১৪ সালে প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর ‘আচ্ছে দিন’-এর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদি। তারপর থেকেই তাঁকে এই প্রসঙ্গ তুলে বারবার খোঁচা দিয়েছে কংগ্রেস-সহ বিরোধীরা। 

[আরও পড়ুন: লকডাউনে কর্মহীন মা, চা বিক্রি করে বোনেদের পড়াশোনার খরচ সামলাচ্ছে কিশোর]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement