রোহিঙ্গা নির্যাতনের মাশুল দিতে হবে মায়ানমারকে, হুমকি আল কায়েদার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রোহিঙ্গা নির্যাতনের কড়া মাশুল দিতে হবে মায়ানমারকে।  সম্প্রতি এরকমই হুমকি দিল কুখ্যত জঙ্গি গোষ্ঠী আল কায়েদা। বিশ্বের সব মুসলিমরা যেন রোহিঙ্গাদের পাশে এসে দাঁড়ান। তাঁদের ত্রাণ ও অস্ত্র দিয়ে লড়াইয়ে সাহায্য করেন, আবেদন জঙ্গি সংগঠনটির।

দাউদের প্রায় ৪৫ হাজার কোটি টাকার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করল ব্রিটেন ]

রোহিঙ্গা মুসলিমদের সঙ্গে জঙ্গি যোগের কারণেই কড়া পদক্ষেপ করে মায়ানমারের সেনা। তার প্রভাব পড়ে সাধারণ রোহিঙ্গাদের উপর। বহু মানুষ বাস্তুহারা হন। উদ্বাস্তু হয়ে পালিয়ে যান অন্য দেশে। মূলত ভারত ও বাংলাদেশে। বাংলাদেশে কয়েক লক্ষ রোহিঙ্গা মুসলামন ইতিমধ্যেই প্রবেশ করেছে বলেই জানিয়েছে রাষ্ট্রসংঘ। উদ্বিগ্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতিমধ্যে এ ব্যাপারে রাষ্ট্রসংঘের সঙ্গে কথাও বলেছেন। কেননা উদ্বাস্তু চাপে সরাসরি প্রভাবিত হচ্ছে সে দেশের অর্থনীতি। ভারতও ব্যতিক্রম নয়। উদ্বাস্তু সমস্যা তো আছেই, পাশাপাশি রোহিঙ্গারা জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রেও ‘বিপজ্জনক’ বলেই মনে করছে বিভিন্ন দেশ। ফলত ঘরহারা বহু মানুষের ঠাঁই নেই কোথাও। এই পরিস্থিতিতেই আল কায়েদার এই হুমকি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। রোহিঙ্গা মুসলমানদের সঙ্গে জঙ্গি যোগের যে কথা বলা হয়, তাতেই যেন সিলমোহর দিল এই জঙ্গি সংগঠন।

জঙ্গিদের দাবি, মুসলমানদের উপর পরিকল্পিতভাবে হামলা চালাচ্ছে মায়ানমার। এর শাস্তি তাদের পেতেই হবে। দুনিয়ার মুসলমান যেমন রোহিঙ্গা মুসলমানদের পাশে ‘ভাই’ হিসেবে দাঁড়ায়। খাদ্য ও অন্যান্য সামগ্রী দিয়ে সাহায্যের পাশাপাশি তাদের অস্ত্র দিয়েও লড়াইয়ে মদত দেওয়ার আরজি জানিয়েছে জঙ্গি সংগঠনটি। সেনার আক্রমণ রুখতে রোহিঙ্গাদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার কথা জানিয়েছে আল কায়েদা। এবং ভারত, বাংলাদেশের মতো দেশের মুসলমানদের কাছ থেকেও এই সাহায্য চাওয়া হয়েছে। রোহিঙ্গা মুসলমানরা যে পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, যে অত্যাচার সহ্য করতে হচ্ছে তাদের, সেই একই পরিণতি মায়ানমার সরকারকেও ভোগ করতে হবে বলেও হুমকি আল কায়েদার।

[ রোহিঙ্গা ইস্যুতে রাষ্ট্রসংঘে সমালোচিত ভারত ]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *