গেরুয়া বসনেই নাইট ক্লাবের উদ্বোধনে বিজেপি সাংসদ সাক্ষী মহারাজ

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তিনি ধর্মপ্রাণ মানুষ৷ মুখে শুধুই তার রাম-নাম৷ ‘অধর্ম’ হলেই ছুটে যান তিনি৷ কারণ, অধর্ম যে তাঁর সয় না! যখনই ‘ধর্ম’ সংকটে পড়েছে, তখন স্বমহিমায় রাজনীতির মঞ্চে ‘রাম ভক্তে’র মতো ঝাঁপিয়ে পড়েছেন৷ একের পর বিতর্কিত মন্তব্য করে সংবাদমাধ্যমের আলোও পেয়েছেন তিনি৷ তাঁকে নিয়ে দেশ জুড়ে নিন্দার ঝড় উঠলেও এতটুকুও বদলাননি তিনি৷ বরং ‘ধর্মে’র ঝড় তুলে ভারতীয় সংসদে পা রেখেছেন৷ এহেন বিতর্কিত ‘ধার্মিক’ সাংসদের হাত ধরেই এবার পথ চলা শুরু করল নাইট ক্লাব৷

সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, গত রবিবার দলবল নিয়ে গায়ে গেরুয়া নামাবলী চাপিয়ে লখনউয়ের একটি পানশালার উদ্বোধন করেন সাংসদ সাক্ষী মহারাজ৷ জানা গিয়েছে,  লখনউয়ের আলিগঞ্জে লেটস মিট নামে একটি নাইট ক্লাবের উদ্বোধন করেন তিনি৷ কিন্তু, একজন ধর্মপ্রাণ বিজেপি সাংসদের হাতে নাইট ক্লাবের উদ্বোধন হওয়ার খবরে ইতিমধ্যেই দেশ জুড়ে তৈরি হয়েছে বিতর্কের আবহ৷  সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে তোলপাড় ফেলে দিয়েছে সাক্ষী মহারাজের নাইট ক্লাব উদ্বোধনের ছবি৷

 পাশে আছে কেন্দ্র, মাসে ২১০ টাকা জমালেই বয়সকালে পেনশন মিলবে ৫০০০ টাকা ]

বরাবর ভারতীয় ঐতিহ্যের পক্ষে সওয়াল করা বিজেপিকে একপ্রকার চাপেই ফেলে দিলেন সাক্ষী মহারাজ৷ বরাবরই বিতর্কের মধ্যে থাকতে ভালোবাসেন তিনি৷ কয়েকমাস আগেই তিনি মন্তব্য করেন, রাস্তাঘাটে প্রেমিক ‌যুগলদের অশালীন আচরণই ‘ধর্ষণে’র কারণ৷ ওইসব ‌যুগলদের জেলে ঢোকানো উচিত বলেও মন্তব্য জুড়ে দেন সাক্ষী৷ ধর্ষণে অভিযুক্ত রাম রহিমের সমর্থনে কথা বলতেও শোনা গিয়েছিল তাঁকে। তা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন। তা সত্ত্বেও অবশ্য বেফাঁস মন্তব্য করা থেকে পিছপা হন না। এবার তাঁর টার্গেটে প্রেমিক-প্রেমিকারা। সাক্ষী মহারাজের দাবি, প্রকাশ্য স্থানে প্রেমিক-প্রেমিকারা অশ্লীল ব্যবহার করেন। বাইক আরোহীদের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, এমনভাবে সকলে বাইকে যায় যেন মেয়েটি ছেলেকে খেয়ে ফেলবে। বা উলটোটা। প্রকাশ্য স্থানে গাড়ি, পার্ক বা প্রকাশ্য স্থানেও অশ্লীল ব্যবহার করেন যুগলরা। এমনি সময়ে সকলেই তাঁদের এড়িয়ে যান। কিন্তু যেই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে অমনি সকলে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলে। তাঁর মতে, প্রেমিক-প্রেমিকাদের ব্যবহারের কারণেই এ ধরনের ঘটে। যাঁরা এরকম অশ্লীল ব্যবহার করেন তাঁদেরকে জেলে পোরা উচিত বলেই মত তাঁর। অনেকটা উত্তরপ্রদেশে চালু হওয়া অ্যান্টি রোমিও স্কোয়াডের দর্শনই  পাওয়া গিয়েছিল তাঁর কথায়।

[  ‘হিন্দু সন্ত্রাস’ তত্ত্ব খারিজ, মক্কা মসজিদ বিস্ফোরণে বেকসুর খালাস স্বামী অসীমানন্দ ]

এর আগেও একাধিকবার বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন এই বিজেপি সাংসদ৷ রাম রহিমের সমর্থনে তিনি বলেছিলেন, একজন ধর্ষণের অভিযোগ তুলছে বাবার বিরুদ্ধে, কিন্তু এতগুলো লোক যখন বাবাকে সমর্থন করছে, তখন পুরো বিষয়টা উলটোদিক থেকে খতিয়ে দেখা উচিত। যার জেরে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি। বিজেপি নেতৃত্ব যখন রাম রহিম নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছিল, তখন মহারাজের এ মন্তব্য রীতিমতো অস্বস্তিতে ফেলেছিল দলকে।  ঠিক তারপরই ধর্ষণ নিয়ে নিজের আজব সাফাই দিলেন সাক্ষী মহারাজ। রোহিঙ্গাদের নিয়েও তাঁর মতামত নির্দিষ্ট করে জানিয়েছেন এই নেতা। তাঁর দাবি, রোহিঙ্গাদের এ দেশে এক মিনিটও থাকার অধিকার নেই। শাসকদলের বক্তব্যের সঙ্গে তাঁর এই মত মেলে। কিন্তু ধর্ষণের কারণ হিসেবে যে বিষয়কে তুলে এনেছেন তিনি, তাতে সমালোচনার ঝড় উঠেছিল গোটা দেশে৷ এবার নাইট ক্লাবের উদ্বোধনে গিয়েও সমালোচনার ঝড় তুললেন বিতর্কিত এই সাংসদ৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *