বাঁকুড়ায় পৈতার ভোজে বিষক্রিয়ায় অসুস্থ শতাধিক, বেশিরভাগই শিশু

টিটুন মল্লিক, বাঁকুড়া: পৈতার ভোজে বিষক্রিয়া। গুরুতর অসুস্থ শতাধিক। বেশিরভাগই শিশু। ঘটনাটি ঘটেছে বাঁকুড়ার ছাতনার লায়েকডিহি গ্রামে। অসুস্থদের ভরতি করা হয়েছে বাঁকুড়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ও সরবেড়িয়া সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে। মঙ্গলবার সকালে অসুস্থদের দেখতে হাসপাতালে যান স্থানীয় বিধায়ক ধীরেন লায়েক। আমন্ত্রিতদের দাবি, অনুষ্ঠানবাড়িতে পায়েস খাওয়ার পরই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন গ্রামবাসী।

[অগ্নিকাণ্ডের পর ডুয়ার্সের জঙ্গল থেকে উদ্ধার গুরুতর জখম যুবক]

বাঁকুড়া ছাতনা থানার লায়েকডিহি গ্রামের বাসিন্দা মানিক লায়েক। সোমবার তাঁর বাড়িতেই পৈতার অনুষ্ঠান ছিল। লায়েকডিহি গ্রাম তো বটেই, আশেপাশের বেশ কয়েকটি গ্রামের বাসিন্দারা পৈতার অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, পৈতার ভোজ খেয়ে ফেরার পর অসুস্থ হয়ে পড়েন আমন্ত্রিতরা। প্রায় সকলেই ভরতি করতে হাসপাতালে। প্রথমে অসুস্থদের নিয়ে যাওয়া হয় সরবেড়িয়া সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে। সেখানে থেকে কয়েকজন পাঠিয়ে দেওয়া হয় বাঁকুড়া মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। অসুস্থদের বেশিরভাগই শিশু। আমন্ত্রিতরা জানিয়েছেন, অনুষ্ঠান বাড়িতে যাঁরা পায়েস খেয়েছিলেন, তাঁরাই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

[সকালে আত্মহত্যার চেষ্টা, বিকেলে নতুন জীবন পেলেন যুগল]

মঙ্গলবার সকালে অসুস্থদের দেখতে হাসপাতালে যান স্থানীয় বিধায়ক ধীরেন লায়েক। তিনি জানিয়েছেন, সোমবার বিকেল থেকে কারও পেটে অসহ্য যন্ত্রণা হতে থাকে, কারও কারও আবার মুখ দিয়ে রক্তও বেরোতে শুরু করে। রাত যত বাড়ছিল, তত বেশি মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছিলেন। পরিস্থিতি এমন জায়গায় পৌঁছয়, যে সকলেই হাসপাতালে ভরতি করতে হয়। বাঁকুড়ার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রসূন কুমার দাস জানান, অসুস্থদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে প্রশাসন। অনেকে সুস্থও হয়ে উঠেছে।

[পরকীয়ার জের, একই দড়িতে আত্মঘাতী প্রেমিক-প্রেমিকা]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *